মােদীকে ‘ছকবাজ’ বলে তুমুল আক্রমণ রুদ্রনীলের, পুরনাে ভিডিও শেয়ার করে ‘ছায়াবাজি’ দেখালেন ঋদ্ধি সেন

সামনেই বিধানসভা নির্বাচন। নির্বাচনকে পাখির চোখ করে জোর প্রস্তুতি সব মহলে। সেই
নির্বাচনের আগে টলিপাড়াতেও এখন দলবদলের আবহ। গত কয়েকদিন ধরেই প্রকাশ্যে আক্রমণ শানাচ্ছিলেন অভিনেতা রুদ্রনীল ঘোষ। এরকম অবস্থায় গত শনিবার অমিত শাহের বাড়িতে গিয়ে বিজেপিতে যোগ দেন অভিনেতা রুদ্রনীল ঘোষ। এরপর রবিবার হাওড়া ডুমুরজলা স্টেডিয়ামে বক্তব্য রাখার সময় বলেন, তিনি মানুষের জন্য কাজ করতে চান। সেই কাজ করতে অনেক সময় বাধাপ্রাপ্ত হয়েছেন তিনি। হাত পা বাঁধা থাকলে কাজ করবেন কীভাবে। তাই মানুষের কাজ করার জন্য তিনি নরেন্দ্র মোদীর আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে পদ্মশিবিরে যোগ দিয়েছেন। তৃণমূলের বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ তুলে দল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন শুভেন্দু অধিকারী, রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়, প্রবীর ঘোষাল, বৈশালী ডালমিয়া। তাঁদের পথ অনুসরণ করেছেন রুদ্রনীল ঘোষ।

যদিও এই প্রথম তাঁর দলবদল নয়, এর আগেও তিনি দলবদল করেছেন। রুদ্রনীলের এই বারবার দলবদল নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় অনেকেই তাকে তীব্র আক্রমণ শানিয়েছেন। আর এবার বাদ গেল না তরুণ অভিনেতা ঋদ্ধি সেনও। বয়সে অনেকটা ছোট হয়েও রুদ্রনীলের বিরুদ্ধে বেশ কায়দা করে আক্রমণ করলেন ঋদ্ধি সেন। কোনও নিন্দা নয়, তার হাতিয়ার সুকুমার রায়ের নিরীহ এক কবিতা। যার আড়ালে নির্দেশ করলেন রুদ্রনীলের এই দ্বিচারিতাকে। ঋদ্ধি সুকুমার রায়ের ছায়াবাজি
কবিতার রূপকে ঠুকলেন রুদ্রনীলকে। রুদ্রনীলের পুরানো একটি ভিডিও শেয়ার করে তিনি কবিতাটি লেখেন।

ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে রুদ্রনীল বলেছেন আমার কাছে ভারতবর্ষ মানে আমার দেশ গণতান্ত্রিক, ধর্মনিরপেক্ষ, প্রজাতান্ত্রিক দেশের কথাই মনে আসে। তিনি এখানে বলেন কোনো গদি মোদীকে আহ্বান করতে পারে না। এর সঙ্গে তিনি আরও বলেন ধর্মনিরপেক্ষতার কোনো পাঠ মোদীর নেই। তিনি বিখ্যাত হয়েছেন দাঙ্গা করে। এমনকি দেশের প্রধানমন্ত্রীকে ছকবাজ বলতেও দ্বিধাবোধ করেন নি। কিন্তু সময় ঘুরতে না ঘুরতেই তিনি সেই ছকবাজের টিমেই নাম লেখালেন এককালের বামপন্থী, মাঝখানে তৃণমূলের সমর্থক অভিনেতা রুদ্রনীল ঘোষ। স্বাভাবিকভাবে সময়ের বাঁকে তাঁর এই দলবদলকে কেউই ভালো চোখে দেখছেন না তাই বলাবাহুল্য। আজ ঋদ্ধির পোস্টে আরও স্পষ্ট করে দিয়েছে।

সম্প্রতি মেট্রো চ্যানেলে শিল্পী মহলে প্রতিবাদ আন্দোলনে দেখা গেছে ঋদ্ধিকে। এর আগে এনআরসি বিরোধী আন্দোলনে সামনে এসেছে ঋদ্ধি। মিছিলে পা যেমন মিলিয়েছেন তিনি। তেমনই সুদৃঢ় বক্তৃতায় মন কেড়েছেন তিনি। বাংলা সিনেমা জগতে অনেকেই এখন‌ ঋদ্ধি সেনকে চেনেন। এই অভিনেতা বাংলা সিনেমাকে এনে দিয়েছেন জাতীয় স্তরের সম্মান। ওপেন টি বায়োস্কোপ সিনেমায় আত্মপ্রকাশ করা কিশোর ঋদ্ধি বছর দুয়েক আগে নগরকীর্তন সিনেমার জন্য পেয়েছেন জাতীয় পুরস্কার। বাবা কৌশিক সেনের মতো তিনিও বাম মনস্ক। আজকের দিনে দাঁড়িয়ে তরুণ প্রজন্মের কাছে ঋদ্ধি যেমন হার্টথ্রব, তেমনই তিনি বহু মানুষের অনুপ্রেরণা। এবার রুদ্রনীলের বিরুদ্ধে সোশ্যাল মিডিয়ায় সুনিপুণ কৌশলে আক্রমণ শানালেন যা অনেকের মন কেড়েছে এই তরুণ তুর্কি।

Leave a Reply