বাজারে আসছে গোবর থেকে তৈরি প্রাকৃতিক রঙ যা মিলবে অনেক সস্তায়! কেন্দ্রের উদ্যোগে তৈরি হবে নয়া কর্মসংস্থান

  • 127
    Shares

কেন্দ্রে মোদী সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকেই আত্মনির্ভর ভারতের ওপর জোর দেওয়া হয়েছে। এবার রঙেও দেশি ছোঁয়া আনতে চাইছে সরকার। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী নীতিন গড়করির হাত ধরেই বাজারে আসতে চলেছে বিশেষ রঙ। মঙ্গলবারই বাজারে আসবে সেই রং। এই বিশেষ প্রকার রঙের নাম দেওয়া হয়েছে খালি প্রাকৃতিক পেইন্ট। ব্যুরো অফ ইন্ডিয়ান স্ট্যান্ডার্ড কর্তৃক অনুমোদিত রঙের বৈশিষ্ট্য এটি অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল ও অ্যান্টি ফাংগাল।

সংস্থার তরফে বিবৃতিতে বলা হয়েছে আপাতত ডিসটেম্পার পেইন্ট ও প্লাস্টিক ইমালশান পেইন্ট এই দুধরণের রং পাওয়া যাবে। কেন্দ্রের তরফে জানানো হয়েছে এই রঙের লেড, ক্রোমিয়াম, পারদ, ক্যাডমিয়ামের মতো ভারী ধাতু নেই। এর ফলে এটা পরিবেশ বান্ধব ও দামেও সস্তা। এই রঙের মূল উপাদান গোবর। তবে এই রঙে কোনও প্রকার উগ্র গন্ধ নেই বলে দাবি করেছেন তাঁরা। জয়পুরের কুমারাপ্পা ন্যাশনাল হ্যান্ডমেড পেপার ইনস্টিটিউটে এই রং তৈরি হয়েছে। খাদি অ্যান্ড ভিলেজ ইন্ডাস্ট্রিজ কমিশনের উদ্যোগে এই রং তৈরি করা হয়েছে। দেশের তিনটি গবেষণাগারে এই রঙের গুণমান বিচার করা হয়েছে। এর মধ্যে দিল্লির সিরাম ইনস্টিটিউট, গাজিয়াবাদের ন্যাশনাল টেস্ট হাউস, মুম্বাইয়ের ন্যাশনাল টেস্ট হাউস রয়েছে।

এই রং তৈরির ফলে দেশে কর্মসংস্থান বাড়বে বলে জানানো হয়েছে কেন্দ্রের তরফে। যেহেতু গোবরই এই রঙের মূল উপাদান তাই কৃষক, গোশালার মালিকদের উপার্জন বাড়বে বলে জানানো হয়েছে। প্রতি গোরু থেকে বছরে‌ অতিরিক্ত ৩০হাজার টাকা আয়ের সম্ভাবনা দেখছে কেন্দ্র। যেসব বাড়িতে খাটাল রয়েছে সেখানে গোবর থেকে রং তৈরিতে উৎসাহিত করছে কেন্দ্র সরকার। করোনাকালে রাসায়নিক মুক্ত রং আনায় উপকৃত হবে গো পালক থেকে আমজনতা সকলেই।

এর আগেও কেন্দ্র সরকারের উদ্যোগে গোবরকে কাজ লাগিয়ে গ্যাস তৈরি করে রান্নার বন্দোবস্ত করা হয়। চালু হয়েছে বায়োগ্যাস প্রকল্প। হুগলির বেশ কিছু এলাকায় ইতিমধ্যেই প্রকল্প চালু হয়েছে। এই গ্যাস থেকে যেমন বিস্ফোরণের কোনও আশঙ্কা নেই, সর্বোপরি দূষণ থেকে মিলবে মুক্তি। গোবরের কারণে অনেক জায়গায় নিকাশি ব্যবস্থা মুখ থুবড়ে পড়েছে। আবার অনেক জমিও নষ্ট হয়ে গেছে। যা থেকে এবার মিলবে মুক্তি।

error: Content is protected !!