নিজের জীবন বাজি রেখে শিশুকে বাঁচিয়ে সংবর্ধিত রেলকর্মী

  • 2.6K
    Shares

কিছুদিন আগে একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায় যেখানে দেখা গেছে যে,একটি শিশুকে সাক্ষাৎ মৃত্যুর হাত থেকে বাঁচিয়েছে একজন পয়েন্টসম্যান। গত ১৭ এপ্রিল সন্ধে ছটার দিকে ট্রেন ধরতে মা তার ছোট্ট শিশুকে নিয়ে প্ল্যাটফর্মে এসেছিলেন, তখনই হঠাৎ দুর্ঘটনা বশত ছয় বছরের শিশু মায়ের হাত ছেড়ে রেললাইনে পড়ে যায়। ঠিক সেই সময় উল্টোদিক থেকে দুরন্ত গতিতে ট্রেন ছুটে আসছিল। মা সঙ্গীতা দৃষ্টিহীন হ‌ওয়ায় কিছু বুঝে ওঠার আগেই একজন রেলকর্মী দেবদূতের মতো ছুটে এসে শিশুটিকে উদ্ধার করে। পয়েন্টস ম্যানের শিশুকে উদ্ধার করার সেই মুহূর্তের ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝড়ের গতিতে ছড়িয়ে পড়ে।

নিজের প্রাণের ঝুঁকি নিয়ে ময়ূর যেভাবে রেললাইনের মধ্য ছুটে গিয়ে শিশুটিকে উদ্ধার করেছিলেন,তাতে সকলেই এই ভিডিওটি দেখার পর বলেছেন যে,‘ সকলের দ্বারা এ কাজ হয়না।’তার এই কাজের জন্য রেলমন্ত্রী পর্যন্ত তাকে ফোন করেছিলেন।

এই প্রসঙ্গে জিজ্ঞেস করা হলে পয়েন্টস ম্যান ময়ূর বলেছেন-“ ঐ শিশুর সঙ্গে যে মহিলা ছিলেন তিনি দৃষ্টিহীন ছিলেন। তাই তিনি কিছু করতে পারতেন না। ওই শিশুকে দেখে রেললাইন ধরে ছুটে যাই। প্রথম একবার ভয় হয়। মনে হয় শিশুকে বাঁচাতে গিয়ে আমি বিপদে পড়ে যাব। পরে মনে হয় আমার ওকে বাঁচানো উচিত। ঘটনার পরে ওই মহিলা খুবই আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েন বারবার আমাকে ধন্যবাদ জানান। পরে ফোন করেছিলেন রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল।”

এই ঘটনায় তার সহকর্মীরা পর্যন্ত গর্বিত হয়ে উঠেছেন এরকম একটি সাহসিকতাপূর্ণ কাজ করার পর যখন রেলওয়ে অফিসে তিনি ঢোকেন তখন তার সহকর্মীরা তাকে হাততালি দিয়ে অভিবাদন জানান। সংবর্ধিত করা হয় রেলকর্মীকে এরপর রেলমন্ত্রীক এই ভিডিও প্রকাশ করে এবং খোদ রেলমন্ত্রী ময়ূরের এই কাজে গর্ববোধ করে ক্যাপশনে লেখেন-“ ময়ূর শেলকের কাজে আমরা খুবই গর্বিত। ভানগানি স্টেশনে নিজের জীবন বাজি রেখে শিশুকে বাঁচিয়ে ব্যতিক্রমী সাহসিকতার পরিচয় দিয়েছেন তিনি।”

One thought on “নিজের জীবন বাজি রেখে শিশুকে বাঁচিয়ে সংবর্ধিত রেলকর্মী

error: Content is protected !!